শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১ | ২৭ চৈত্র, ১৪২৭ | ২৭ শাবান, ১৪৪২

সর্বশেষ

প্রচ্ছদ অন্যান্য

খুরুশকুলে ভূমিদস্যু নাজিরের দখলে বনবিভাগের প্রায় ৫০ একর জমি


প্রকাশের সময় :২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৪:৫৪ : পূর্বাহ্ণ

সাইফুল ইসলাম:
কক্সবাজার সদরের খুরুশকুলে বিএনপি নেতা নাজির হোসেন প্রায় ৫০ একর সরকারি জমি অবৈধভাবে দখল করে রেখেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। কাঁটাতার দিয়ে ঘিরে রাখা এসব জমি বিক্রি করে রাতারাতি কোটি টাকার মালিক হয়ে গেছেন চিহ্নিত এই ভূমিদস্যু।
সরেজমিন প্রতিবেদন তৈরী করতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য।


জানা যায়, কক্সবাজার সদর উপজেলার খুরুশকুল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন নাজির হোসেন ওরফে নাজির কোম্পানি। সরকার বিরোধী সংগঠনের নেতা হওয়ার সুবাদে স্পষ্ট প্রতিয়মান হয় যে, তিনি সবসময় সরকারের উন্নয়ন বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত। যার ধারাবাহিকতায় খুরুশকুল পূর্ব হামজার ডেইল এলাকায় জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী অর্থাৎ মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার সরূপ দেয়া অসহায় গরীব মানুষের প্রায় ৫ একর জমি অবৈধভাবে নিজের দখলে নিয়ে রেখেছেন। সেখান থেকে গত কিছুদিন আগে খুরুশকুল মৌজার বিএস ১নং খাস খতিয়ানের ৫২১৭ বিএস দাগের ৫০ শতক জমি উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর এসিল্যান্ড। যেখানে বর্তমানে ৮টি ভূমিহীন পরিবারের জন্য মুজিববর্ষের বাড়ি নির্মাণ করছে সরকার। এরিমধ্যে তিনটি বাড়ি তৈরীও হয়ে গেছে। অভিযোগ এখানেই শেষ নয়, সম্প্রতি খুরুশকুল মেহেদী পাড়া এলাকার মৃত বাদশা মিয়ার পুত্র আব্দুস শুক্কুরকে ১৬ শতক খাস জমি দখল বিক্রি করেছেন নাজির।
শুক্কুরকে বিক্রি করা প্রতি শতক জমির মূল্যও নিয়েছেন ১ লাখ টাকা করে। ফলে নাজির সেখান থেকে নিজের পকেটে ঢুকিয়েছেন ১৬ লাখ টাকা। শুক্কুর প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, তিনি ওই জমিগুলো নাজিরের কাছ থেকে স্টাম্প মূলে দখল কিনেছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তি জানান, অস্ত্রধারী ভূমিদস্যু বাহিনীকে ব্যবহার করে অসংখ্য সরকারি জমি জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছেন নাজির হোসেন।
দস্যুতার কু-খ্যাতি হিসেবে এলাকার বহু লোক তাকে “ভূমিদস্যু নাজির” হিসেবে চিনেন।
শুধু তাই নয়, অভিযোগ রয়েছে, একই এলাকায় বনবিভাগের আরও প্রায় ৫০ একর পাহাড়ি টিলা শ্রেণীর জমি কাটাতার দিয়ে ঘিরে দখল করে রেখেছেন নাজির। ওই জমি পাহারায় রেখেছেন তার আরেক লালিত সন্ত্রাসী নুরুল আলমকে।
নাজিরের আরেক কেয়ারটেকার মৃত শহর আলীর ছেলে ইদ্রিস।
সেও বেশ কিছু সরকারি জমি নিজের দখলে রেখেছে বহু বছর ধরে। ইদ্রিস এবং নুরুল আলম সবসময় দা-ছুরি, লোহার রড এমনকি অস্ত্রও সাথে রাখেন এমন জনশ্রুতি রয়েছে মানুষের মুখে।
নাজিরের হুকুমে ওই এলাকায় দখল বেদখলে দাঙ্গা হাঙ্গামায় নেতৃত্ব দেয় তার ভূমিদস্যু সিন্ডিকেট।
তবে সরকারি জমি দখলসহ আনিত অভিযোগগুলো সত্য নয় দাবী করেছেন অভিযুক্ত বিএনপি নেতা নাজির হোসেন। তিনি বলেন, এসব তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।
অন্যদিকে খুরুশকুল মেহেদী পাড়া এলাকার বাসিন্দা নাজির দীর্ঘদিন ধরে অস্ত্রধারী বিশাল দস্যু সিন্ডিকেট গঠন করে কাঁটাতার দিয়ে প্রায় ৫০ একর সরকারি জমি নিজের দখলে রাখার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বনবিভাগ অনেকটা বেখবর।
যদিও এ বিষয়ে কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ তৌহিদুল ইসলাম জানান, সরকারি জমি অবৈধভাবে কাঁটাতার দিয়ে দখল করে রাখার ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। শিগগিরই তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে দখলদারদের উচ্ছেদ করা হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও খবর