শনিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২১ | ২৭ চৈত্র, ১৪২৭ | ২৭ শাবান, ১৪৪২

সর্বশেষ

প্রচ্ছদ কক্সবাজার

হঠাৎ মুরগির দাম কেজিতে বেড়েছে ৩০ টাকা


প্রকাশের সময় :২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৭:০৪ : অপরাহ্ণ

গতকাল শহরের বৃহত্তর রুমালিয়ারছড়া পিটিস্কুল বাজার থেকে তোলা ছবি।
সাইফুল ইসলাম:
খুচরা বাজারে হঠাৎ ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে কেজির প্রতি ২৫ থেকে ৩৫ টাকা। দুই/তিন দিন আগে বাজারে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি করছিল ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা। কিন্তু গতকাল বৃহস্পতিবার সেই ব্রয়লার কেজিতে বিক্রি করছেন ১৬০ থেকে ১৬৫ টাকা।

মুরগি বিক্রেতা কামাল উদ্দীন বলেন, প্রায় সপ্তাহ ধরে কক্সবাজার পর্যটকে ভরপুর। তাই বিভিন্ন হোটেল ও রেস্তোঁরেন্টে ব্রয়লার মুরগির চাহিদা বেড়ে গেছে। ফলে পাইকারী বাজারে মুরগির দাম বেড়ে যাওয়ায় খুচরা বাজারে মুরগির দাম বেড়েছে।

এভাবেই চাল ও তেল এর পাশাপাশি হঠাৎ মুরগির দাম বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। নিত্যপণ্যের দাম প্রতিনিয়তেই বাড়তে থাকলে হত-দরিদ্র ও মধ্যবিত্তিদের না খেয়ে থাকতে এমন অভিযোগ সচেতন মহলের।

এদিকে শীতের সবজির বাজারে সরবরাহ বেশি থাকায় দামও স্বস্তি রয়েছে। কিন্তু চাল ও তেলের মতো মুরগির দামও প্রতিনিয়তে বেড়ে গেলে অসহায় মানুষদের না খেয়ে থাকতে হবে এমন অভিযোগ রিক্সা চালক ক্রেতা রফিক উদ্দীনের।
তিনি বলেন, আমার ছেলে, মেয়ে ও স্ত্রীসহ আমরা পরিবারে ৭ জন সদস্য রয়েছে। কিন্তু আমাকে প্রতিদিন আয় করতে হয় সাড়ে ৫০০ থেকে ৬০০
টাকা। ওই ৬০০ টাকা থেকে রিক্সা বাড়া দিতে হয় ১২০ টাকা। বাকী থাকে ৪৮০ টাকা। বাকী টাকা নিয়ে বাজারে গেলে কোন রকম চাল ও তেল কিনলে মাথায় হাত দিতে হয় অন্যান্য নিত্যপণ্যের জিনিস কিনতে পারবো কিনা। এভাবেই নিত্যপণ্যের দাম বাড়তে থাকলে আমাদের গরীবদেরকে না খেয়ে থাকতে হবে।

গতকাল ২৫ ফেব্রয়ারি (বৃহস্পতিবার) কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন এসব চিত্র দেখা গেছে।
এদিকে বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রয়ারি) কক্সবাজার শহরের বৃহত্তর রুমালিয়ারছড়া পিটিস্কুল বাজারে সরজমিনে দেখা গেছে, প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি করছেন ১৬০ থেকে ১৬৫ টাকা। কিন্তু সেই মুরগি কয়েকদিন আগে বিক্রি করছিল ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা। প্রতিকেজি সাদা লেয়ার মুরগি ২০০ টাকা, লাল লেয়ার মুরগি ২৬০ থেকে ২৬৫ টাকা, সোনালী মুরগি ৩০০ টাকা থেকে ৩১০ টাকা, দেশী মুরগি ৪০০ থেকে ৪২০ টাকা, সোনালী মাদার ৩২০ থেকে ৩৩০ টাকা, সোনালী মাদার ৩৫০ টাকা থেকে ৩৫৫ টাকা।
অন্যদিকে সবজির দাম তুলনামুলক ভাবে স্থিতিশীল রয়েছে। প্রতিকেজি টমেটো বিক্রি করছে ১৫ টাকা, কাঁচামরিচ কেজিতে ৩০ টাকা, ফুলকপি ২০ টাকা, বাধাকপি ২০ টাকা, আলু ১৫ থেকে ২০ টাকা, সিম প্রতিকেজি ৩০টাকা, ঢেঁড়শ প্রতিকেজি ৩০ টাকা, তিত করলা ৫০ টাকা, বরবটি ৪০ টাকা বিক্রি করা হচ্ছে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন বলেন, জনস্বার্থে বাজার তদারকি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। যদিও সরকারী সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস বিক্রি না করেন তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও খবর